Are the minorities going to take to the streets

নিশিকান্ত ভূঞ্যাঃ- আন-এডেড মাদ্রাসার শিক্ষকদের সংগঠনের পক্ষ থেকে বলা হয় যে, বর্তমান রাজ্য সরকার অনুমোদিত আন-এডেড মাদ্রাসার শিক্ষক – শিক্ষিকা থেকে ছাত্র – ছাত্রীদের সঙ্গে যে দীর্ঘদিন ধরে অমানবিক অন্যায় আচরণ করেছে ও ক্রমান্বয়ে করে আসছে তা পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল ঘটনা। আধুনিক সভ্যতার যুগে যা স্বপ্নেও কল্পনা করা যায় না।কিন্তু এই সরকারের কাছে সেটি কোন বিষয় নয়। কি আশ্চর্য এই সরকার! কি নির্মম এই সরকার! অপধার্থ সরকার বললেও কম হবে। 2500 শিক্ষিত যুবক – যুবতীদের 9 টি মূল্যবান বৎসর, তাদের কর্মদক্ষতা, সঞ্চিত অর্থ এই অমানবিক রাজ্য সরকার ধংস করে দিয়েছে।

আন-এডেড মাদ্রাসার শিক্ষকদের সংগঠনের পক্ষ থেকে আরো বলা হয় যে,যার প্রতিবাদ বিগত 6 বৎসরে বারংবার আছড়ে পড়েছে কোলকাতার রাজপথে। তবুও কর্ণপাত করেনি এই রাজ্য সরকার । সংখ্যালঘু সমাজের মানুষ তবুও আশা ও বিশ্বাসের কারণে ঢালাও ভোট দিয়ে এসেছে। বারংবার জয়ী করেছে এই রাজ্য সরকারকে। এটাই কি তার প্রতিদান ?

পশ্চিম বাংলার বুদ্ধিজীবী মহল দাঁড়িয়েছে এই অসহায় ও বিনা পারিশ্রমিকে কর্মরত 2500 শিক্ষক – শিক্ষিকাদের পাশে। বলতে অবাক লাগলেও সত্য – বলতে বাধ্য হচ্ছি এই নির্বোধ সরকারকে আধুনিক মাদ্রাসা শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধংস করার অধিকারকে দিয়েছে ? সরকারে একদল আসে আবার সময় ফুরলে চলে যায়। কিন্তু যে সমস্ত ছাত্র – ছাত্রীরা এই রাজ্য সরকারের জন্য স্কুল ছূট হয়ে শিশু শ্রমিকে পরিণত হলো – তার খেসারত কে দেবে ? …… পশ্চিম বাংলার সাধারণ মানুষ ? আমলা ? মন্ত্রী ? প্রশাসন ? না, আমাদের রাজ্যের বর্তমান মুখ্যমন্রী ? কিছু মন্ত্রী ইতি মধ্যে স্বীকার করে নিয়েছেন তাদের নাকি ক্ষমতা নেই! তা হলে এই সব মন্ত্রীরা বিভিন্ন সময়ে ডেকে মরীচিকা সম আস্বাস কেন দিয়েছিলেন এই সমস্ত শিক্ষকদের ? কেন আন্দোলন কে স্তম্ভিত করেন তারা ? এটাকি প্রতারণা নয় ? প্রশাসনের যদি বেতন দেওয়ার ক্ষমতা নাই থাকে, তবে অ্যারেস্ট করে লকআপে ঢোকান কেন ? দিনের পর দিন একটি জাতির শিক্ষার মানদণ্ড কে ধূলিসাৎ করে দিচ্ছেন কেন ? এর প্রতিবাদ কি শুধু আন-এডেড মাদ্রাসার শিক্ষক – শিক্ষিকাদেই করতে হবে ? না/ পশ্চিম বাংলার সমস্ত শ্রেণীর মানুষ কে একসঙ্গে সঙ্ঘবদ্ধ হয়ে নামতে হবে ?

Advertisement

রইল প্রশ্ন আপামর জন সাধারণের কাছে …… এই চরম অসহনীয় অন্যায়ের প্রতিবাদে জাতির পিতার পদতলে অর্থাৎ ধর্মতলায় গান্ধী মূর্তির পাদদেশে বসতে চলেছে আন-এডেড মাদ্রাসার শিক্ষকরা। জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সবাইকে আন্তরিক ভাবে এই সমস্ত অসহায় শিক্ষকদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য করজোড়ে অনুরোধ করছি ….. তাং- 29/09/2020।

বিঃদ্রঃ উপরোক্ত বক্তব্য আন-এডেড মাদ্রাসার শিক্ষক সংগঠনের পক্ষ থেকে।এই জন্য আমাদের নিউজ পোর্টাল কোনো ভাবেই দায়ী নয়।

সকল খবর সবার আগে ফেসবুকে ফ্রী পেতে চাইলে আমাদের পেজ লাইক করুন। Click Here..

নারায়নগড়ে কৃষি বিলের সমর্থনে বিজেপির মিছিল ও পথ সভা !

Advertisement

Leave a Reply

Your email address will not be published.