লকডাউনে কাজ বন্ধ ‘মাচা শিল্পীদের’! মুশকিল আসান হবেন বাবুল সুপ্রিয়? নতুন পদক্ষেপে জল্পনা

বিশ্ব মহামারী করোনার জন্য লকডাউন এর পাশাপাশি সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে দিয়ে কত মানুষ কাজ হারিয়ে আজ অসহায় অবস্থায় মধ্যে দিয়ে দিন যাপন করতে হচ্ছে। এই এমতাবস্থায় জি বাংলার জনপ্রিয় শো ‘মীরাক্কেল’ খ্যাত স্ট্যান্ড-আপ কমেডিয়ান ও প্যারোডি গায়ক রাজু মিদ্দা ও অর্থিক ভাবে সমস্যায় জর্জরিত। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে কোনো অনুষ্ঠান করা সম্ভব নয় তাই শিল্পীদের অবস্থা শোচনীয়। রাজু মিদ্দা বলেন করোনা ফলে তাঁর মিউজিক ট্রুপের শিল্পীরা কেউ টোটো চালাচ্ছেন, আবার কেউ বা সবজি বিক্রি কোনো রকমে দিন যাপন করছেন।এমতাবস্থায় রাজু মিদ্দা দারস্থ হয়েছেন শিল্পী তথা আসানসোলের সাংসদ কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়র ।কারন একমাত্র শিল্পী বুঝতে পারবেন শিল্পীরা এই করোনা পরিস্থিতিতে কিভাবে দিন যাপন করবে।এছাড়া রাজু মিদ্দা এও জানান যে মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছেও তাদের দুঃখ দুর্দশার কথা জানাবেন। কথায় আছে আজকে যে রাজা কালকে সে পথের ভিক্ষারীও হতে পারে।সেই রকমই এক সময় জি বাংলার জনপ্রিয় শো মীরাক্কেল খ্যাত স্ট্যান্ড আপ কমেডিয়ান ও প্যারোডি গায়ক রাজু মিদ্দা বর্তমান আর্থিক কষ্টের মধ্যে দিয়ে দিনযাপন করতে হচ্ছে।তাই এই করোনা পরিস্থিতিতে কিভাবে দুঃখের মধ্যে দিয়ে তাদের জীবন যাপন করতে হচ্ছে তা শিল্পী তথা আসানসোলের সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়কে ভয়েস ম্যাসেজে তাঁরই গাওয়া গানের দু’কলি গেয়ে সাংসদকে জানান রাজু মিদ্দা।

Advertisement

‘মীরাক্কেল আক্কেল চ্যালেঞ্জার’ খ্যাত রাজু মিদ্দা বলতেই সকলে মনে অবশ্যই পড়বে নচিকেতা, কুমার শানু, কিশোর, রফি কন্ঠে প্যারোডি গান বা হরবোলার সুর। সাউথ ইন্ডিয়ান ভাষায় মহালয়া। উলটো শব্দে কিংবা কথায় রবি ঠাকুরে কবিতা আওড়ানো। মীর থেকে শ্রীলেখা মিত্র, রজতাভ দত্ত, পরাণ বন্দ্যোপাধ্যায়, নচিকেতার অত্যন্ত স্নেহের ছিলেন এই রাজু মিদ্দা।
বিনোদ রাঠোর, অনুরাধা পাড়োয়াল, জিৎ, শ্রাবন্তী, রাঘব, অনুপমের সঙ্গে একই মঞ্চে অনেক অনুষ্ঠান করেছেন। সেই রাজু মিদ্দা স্বপ্নেও কোনদিন ভাবতে পারেনি তাকে এই ভাবে দিন যাপন করতে হবে।

এ প্রসঙ্গে রাজু মিদ্দা বলেন, “গত চার মাসে বহু প্রোগ্রাম বাতিল হয়ে গেল। আমাদের কোথাও আশা ছিল পুজোর সময় হয়তো সব স্বাভাবিক হয়ে যাবে। কিন্তু এখন তো দেখছি অন্তহীন অপেক্ষা।” এর পাশাপাশি তিনি এও বলেন যে, “অবশ্যই বিনোদনের আগে মানুষের প্রাণের দাম বেশি।”

করোনার গ্রাস থেকে কি সাধারণ মানুষ কি সেলিব্রিটি কেউই রক্ষা পাচ্ছে না। করোনা ভাইরাসের হাত থেকে রক্ষা পেতে চিকিৎসক বিশেষজ্ঞ মহল সাধারণ মানুষকে মাস্ক এর সাথে সাথে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার কথা বলেছেন। কিন্তু এই সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে গিয়ে মানুষের রুজি রোজগারে টান পড়েছে। এমতাবস্থায় সাধারণ মানুষের জীবন যাপন করা দুরূহ হয়ে যাচ্ছে। বিশেষত শিল্পীদের অনুষ্ঠান একেবারে বন্ধ। তাই তাদেরকে রুজি রোজগারের জন্য অন্য পথ নিতে হচ্ছে। এই শিল্পীদের দুরাবস্থার কথা রাজু মিদ্দা আসানসোলের সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা শিল্পী বাবুল সুপ্রিয়র জানিয়েছেন এবং মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও জানাবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.