College job by forging documents

নিশিকান্ত ভূঞ্যাঃ- গুণীজনকে সোশ্যাল মিডিয়ায় কটূক্তি, পরীক্ষায় অধিক মার্ক্স্ পাইয়ে দেওয়ার নাম করে টাকা আদায় এসব তো ছিলই এবার সংযুক্ত হলো নথি জাল করে কলেজে চাকরি পাওয়ার অভিযোগ । সবকটা ক্ষেত্রেই অভিযোগের তীর কলেজের SACT অধ্যাপকেদের বিরুদ্ধে ।

আজ YouTube সংবাদ চ্যানেল আরামবাগ টিভি একটি খবর সম্প্রচার করে যা রাজ্যের শিক্ষামহলে রীতিমতো চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে । সম্প্রচারিত খবরে দেখা যায় পূর্ব বর্ধমানের কালনা কলেজের ভূগোল বিভাগের এক SACT অধ্যাপকের UGC NET এর সার্টিফিকেট এ রীতিমতো অসঙ্গতি রয়েছে, কারণ ওই অধ্যাপকের UGC NET এর ক্রমিক সংখ্যা UGC র ওয়েবসাইট এ রিতেশ কুমার নামক এক ব্যক্তির নামে নথিভুক্ত রয়েছে ।

College job by forging documents College job by forging documents

Advertisement

ঠিক এখানেই উঠছে প্রশ্ন, একই ক্রমিক সংখ্যায় দুজনের নামে দুটি UGC NET এর সার্টিফিকেট কি করে থাকতে পারে ? এরপর আরামবাগ টিভি একটি তথ্য জানার অধিকার (RTI) আইনে করা আবেদন এর কপি পেশ করে যা এই ধোঁয়াশা পরিষ্কার করার জন্য যথেষ্ট । তথ্যের অধিকার আইনে আবেদনকারী কালনা কলেজের ওই অধ্যাপকের UGC NET এর ক্রমিক সংখ্যা এবং সার্টিফিকেট নম্বর দিয়ে জানতে চেয়েছিলেন এই সার্টিফিকেটটি অভিযুক্ত অধ্যাপকের নামে নথিভুক্ত কিনা ? এই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে UGC জানায় এই নামে কোনো সার্টিফিকেট UGC নথিভুক্ত করেনি | তাহলে কি ওই অধ্যাপকের UGC NET এর সার্টিফিকেট টা কি জাল? এই প্রশ্নটাই ঘুরপাক খাচ্ছে কালনার শিক্ষিত মহলে |

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য এর আগেও বিভিন্ন বিতর্কে নাম জড়িয়েছে বিভিন্ন কলেজের SACT অধ্যাপকদের | প্রবীণ পুরাতত্ত্ববিদ চিত্তরঞ্জন দাসগুপ্তকে সোশ্যাল মিডিয়াতে কটূক্তি করেন বিষ্ণুপুরের একজন স্যাক্ট অধ্যাপক, এরপর কাটোয়া কলেজের ছাত্রছাত্রীদের কাছে পরীক্ষায় নম্বর বাড়িয়ে দেওয়ার কথা বলে টাকা দাবি করেন ওই কলেজের Zoology বিভাগের বিভাগীয় প্রধান এবং ২ জন SACT অধ্যাপক ।

বিভিন্ন বিতর্কিত এবং আপত্তিকর বিষয়ে বারবার নানা কলেজের SACT অধ্যাপকদের নাম জড়ানোয় কার্যত একটা প্রশ্ন উঠেই যাচ্ছে যে এই রাজ্য সরকার রাজ্যের বিভিন্ন কলেজে SACT নাম দিয়ে কাদের নিয়োগ করছে ? যাদের নিয়োগ করছে তাদের কি আদৌ শিক্ষার প্রতি কোনো শ্রদ্ধা আছে না শুধুমাত্র পাইয়ে দেওয়ার রাজনীতির হাত ধরে কলেজে তাদের অনুপ্রবেশ ঘটছে ? উচ্চ শিক্ষার্থী, যোগ্যতাসম্পন্ন চাকুরিপ্রার্থী, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় এবং রিসার্চ ইনস্টিটিউট এর গবেষকগণ দীর্ঘদিন থেকে রাজ্যের কলেজগুলোতে SACT নিয়োগের বিরোধিতা করছে এবং United Students and Research Scholars Association (USRESA) নামের ফোরাম তৈরি করে তারা কলকাতা উচ্চ আদালতে মামলাও করেছে যা বর্তমানে বিচারাধীন ।

SACT নিয়োগের প্রসঙ্গে USRESA র সভাপতি তথা বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক জয়দেব পাত্রর কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন “বর্তমান রাজ্যসরকার রাজ্যের উচ্চশিক্ষিত এবং যোগ্যতাসম্পন্নদের প্রতি বিমাতৃসুলভ আচরণ করছে । একদিকে সবরকম যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও শুধুমাত্র স্বল্প শূন্যপদের অজুহাত দেখিয়ে কলেজ সার্ভিস কমিশন বা পাবলিক সার্ভিস কমিশনের পরীক্ষায় হাজার হাজার চাকুরিপ্রার্থীকে ওয়েটিং লিস্টে রেখে দিচ্ছে, ঠিক অন্যদিকে SACT এর নাম দিয়ে রাজ্যসরকার কলেজে পড়ানোর যোগ্যতা না থাকাদের ৬০ বছর পর্যন্ত পড়ানোর সুযোগ করে দিচ্ছে |” সরকারের এই দ্বিচারিতার তীব্র বিরোধিতা করে তিনি আরও বলেন, “বিচার ব্যবস্থার প্রতি আমাদের পূর্ণ আস্থা রয়েছে, আশা করি আমরা ন্যায়বিচার পাবো ।”

সকল খবর সবার আগে ফেসবুকে ফ্রী পেতে চাইলে আমাদের পেজ লাইক করুন। Click Here..

Advertisement

কলেজে অধ্যাপক নিয়োগে UGC এর নির্ধারিত যোগ্যতার কি কোনো মূল্য নেই? বেআইনি SACT নিয়োগ নিয়ে রাজ্যের বিরোধী দলগুলো তাদের অবস্থান স্পষ্ট করুক। লিখেছেন –নেট পাস ও বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের এম ফিল রত ছাত্র নিশিকান্ত ভূঞ্যা ।

 সিপিএম কি পারবে ২০২১ এর বিধানসভার নির্বাচনের আগে রাজনৈতিক মটি পুনরুদ্ধার করতে? একাধিক দাবীতে সিপিএমের মহামিছিল !

Leave a Reply

Your email address will not be published.