নিশিকান্ত ভূঞ্যাঃ-  2015 প্রাথমিক টেট পরীক্ষায় উত্তীর্ণ, D.EL.Ed প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত শিক্ষামন্ত্রীর বিরুদ্ধে কথা না রাখার অভিযোগে 2/09/2020 (বুধবার) পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক টেট ( 2015) উত্তীর্ণ ডি.এল.এড প্রশিক্ষিত ঐক্যমঞ্চ- তরফ থেকে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার D.M, D.I, D.P.S.C অফিসে, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা পরিষদ কার্যালয়ে, নদিয়া জেলার ডি আই অফিসে, বীরভূম জেলায় D.I অফিসে এবং  হুগলি জেলায় D.I ও D.P.S.C অফিসে ডেপুটেশন জমা দেওয়া হলো।

Advertisement

প্রসঙ্গত পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক টেট (2015) উত্তীর্ণ D.EL.Ed প্রশিক্ষিত ঐক্য মঞ্চ পক্ষ থেকে জানানো হয় যে, 2017 সালের 26 শে অক্টোবর মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী মহাশয় এর একটি বক্তব্য তথা সরকারের প্রাথমিক শিক্ষক নিয়ােগ সংক্রান্ত একটি নতুন নীতির কথা পশ্চিমবঙ্গের একটি সংবাদ মাধ্যম (ABP নিউজ)- এ সাংবাদিক কৃষ্ণেন্দু অধিকারী মারফত একটি খবরে দেখানাে হয় যে, যে সমস্ত পরিক্ষাথী 2015 সালের প্রাথমিক টেট পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিলেন, কিন্তু শুধুমাত্র সেই সময় D.EL.Ed প্রশিক্ষণ না থাকার কারণে তারা বঞ্চিত হয়েছিলেন, এমন প্রার্থীরা যদি পরবর্তীতে তাদের D.EL.Ed প্রশিক্ষণ সমাপ্ত করেন, তবে তাদের ধাপে ধাপে নিয়ােগ করা হবে। এবং এই সংবাদ এর কিছুদিন পরেই 02/11/2017 পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক পর্ষদ থেকে একটি নােটিফিকেশন জারি করা হয় এবং সেখানে 2014-16 এবং R.CI 2015- 17 D.EL.Ed প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত পাশাপাশি 2015 প্রাথমিক টেট পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীরা চাকরি পায়। কিন্তু শিক্ষামন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী পরবর্তীতে যারা প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করেছেন এমন আমরা প্রায় 1200 জন প্রার্থী এখনাে প্রশিক্ষণ সমাপ্ত করার পরেও নিয়ােগপত্র আজও পাইনি।

তাই মাননীয় শিক্ষামন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী আমরা নিয়ােগের দাবিতে পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক টেট (2015) উত্তীর্ণ D.EL.Ed প্রশিক্ষিত ঐক্য মঞ্চ পক্ষ থেকে ডেপুটেশন  দেওয়া হল।

পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক টেট (2015) উত্তীর্ণ D.EL.Ed প্রশিক্ষিত ঐক্য মঞ্চ পক্ষ থেকে দাবি সমূহ হলো _

১. 2015 সালের প্রাইমারি টেট পরীক্ষায় উত্তীর্ণ, এবং D.EL.Ed প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত এমন 1200 জন প্রার্থীদেরকে দ্রুত প্রাথমিক শিক্ষক পদে সরাসরি নিয়ােগ।

২. নতুন পরীক্ষা ছাড়াই ( 2015 এর টেট) পরীক্ষার সাপেক্ষেই আমাদেরকে সরাসরি নিয়ােগ করতে হবে। যেভাবে 2014-16 এবং আর.সি.আই 2015-17 সরাসরি নিয়ােগপত্র পেয়েছিল।

Advertisement

৩. বর্তমান সরকার ইতিমধ্যে প্রায় 10 হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলিতে পঞ্চম শ্রেণি যুক্ত করেছেন, এবং এরপরও 4 হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়েপঞ্চম শ্রেণী চলতি বছরের যুক্ত হয়েছে। সেজন্য অনেক শূন্যপদ সৃষ্টি হয়েছে, শিক্ষক-শিক্ষিকার প্রয়ােজনে অবিলম্বে আমাদের নিয়ােগের বিষয়টি মানবিক দৃষ্টি দিয়ে দেখার জন্য অনুরােধ জানাই।

 

সকল খবর সবার আগে ফেসবুকে ফ্রী পেতে চাইলে আমাদের পেজ লাইক করুন। Click Here..

 

নতুন করে শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তির দাবিতে ডেপুটেশন চাকুরীপ্রার্থীদের!!!

Leave a Reply

Your email address will not be published.