৯ ই আগষ্ট সারা রাজ্যের বিভিন্ন জেলাগুলিতে কুড়মি সেনার উদ্যোগ বিশ্ব আদিবাসী দিবস উদযাপন হলো। রাজ্যের বিভিন্ন জেলাতে যেমন ঝাড়গ্রাম, পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, পশ্চিম মেদিনীপুর, পূর্ব মেদিনীপুর প্রভৃতিতে কুড়মি সেনার উদ্যোগে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পালিত হল বিশ্ব আদিবাসী দিবস। তবে কুড়মি সেনার উদ্যোগে বিশ্ব আদিবাসী দিবসের মূল অনুষ্ঠানটি হয় পুরুলিয়ার মা রাকাব বুড়ির থানে। পুরুলিয়ার মা রাকাব বুড়ির থানে পতাকা উত্তোলনের পাশাপাশি পাতা নাচের আয়োজন করা হয়। এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কুড়ামি সেনার প্রেসিডেন্ট রবীন্দ্রনাম মাহাত।

Advertisement

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য ১৯৯৪ সালে জাতি সংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে ৯ ই আগষ্টকে বিশ্ব আদিবাসী দিবস হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। তরপর থেকে এই দিনটি বিশ্ব আদিবাসী দিবস হিসেবে পালন করা হয়ে থাকে। আদিবাসীদের অধিকার ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে সুরক্ষা প্রদানের জন্য এই দিবস পালন করা হয়ে থাকে। মুলত আদিবাসী জনগনের উন্নয়ন, পরিবেশ উন্নয়ন শিক্ষা ও সংস্কৃতি সম্পর্কিত বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের লক্ষ্য এই দিন বিশ্ব আদিবাসী দিবস হিসেবে পালন করা হয়ে থাকে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য বিশ্বের ৭০ টি দেশে প্রায় ৩০ কোটি আদিবাসী বাস করে। কিন্তু তাঁরা অধিকাংশ মানুষ তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত। জঙ্গল মহলে বিশ্ব আদিবাসী দিবস উপলক্ষ্যে বক্তব্য রাখতে গিয়ে কুড়মি সেনার সদস্য অরূপ মাহাত বলেন, “আদিবাসীদের ভাষা, সংস্কৃতি ও আত্মপরিচয়ের অধিকারকে স্বীকৃতি দিতেই এই দিনটিকে বিশ্ব আদিবাসী দিবসের মর্যাদা দিয়েছে জাতিসংঘ। অথচ, ভারতবর্ষে কুড়মিরা আদিবাসী হওয়া সত্ত্বেও বিভিন্ন অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে তারা। স্বাধীনতার পর থেকেই নিজেদের জাতিসত্তার অধিকার ফিরে পেতে লড়াই করে চলেছে কুড়মিরা। বিভিন্ন সময়ে সরকার এ বিষয়ে প্রতিশ্রুতি দিলেও, কাজের কাজ কিছুই করেনি। তাই, কুড়মিরা আদিবাসী হয়েও এখনও সরকারি স্বীকৃতি পেল না। যা দুর্ভাগ্যজনক।”

Advertisement

 

আরও পড়ুন

আপার প্রাইমারি চাকুরি প্রার্থীদের জন্য খুশির খবর? সংগ্রামী মঞ্চের পক্ষ থেকে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ !

Leave a Reply

Your email address will not be published.